1. editor@jagratajanata24.com : editor :
  2. info@holyit.net : jjanata24 :
  3. admin@gmail.com : newsjjanata24 :
দাবীকৃত ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেয়ায় সন্ত্রাসীদের হাতে পটুয়াখালী জেলা পরিষদ সদস্য লাঞ্ছিত - জাগ্রত জনতা ২৪
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১০:০০ অপরাহ্ন
হেড লাইন :
যান্ত্রিক ত্রুটি।পুড়ে গেছে বরগুনার ইপিআই ভবনের দু’টি ফ্রীজ। তদন্ত কমিটি গঠন। আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কলাপাড়ায় ছাত্রলীগ নেতার ডান হাতের কব্জি কর্তন বান্দরবানে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পানিবন্দী ৫০ হাজার মানুষ সুন্দরী ফলে ছেয়ে গেছে কুয়াকাটার সৈকত আমতলীতে করোনায় অজ্ঞাত এক যুবক ও এক বৃদ্ধার মৃত্যু সাগরের বড় বড় ঢেউ তীরে এসে আছড়ে পড়ছে। পোতাশ্রয় নিয়েছে শিববাড়িয়া নদীতে শত শত মাছ ধরা ট্রলার টমটম দুর্ঘটনায় আহত পরিবারকে দশমিনায় আর্থিক সহায়তা প্রদান নিজের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে অনুদান দিলেন চেয়ারম্যান জাফর ইকবাল লকডাউনের ৭ম দিনে ব্যাপক তৎপর গলাচিপা উপজেলা প্রশাসন দশমিনায় গ্রাম-পুলিশের মাঝে সাইকেল বিতরন

দাবীকৃত ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেয়ায় সন্ত্রাসীদের হাতে পটুয়াখালী জেলা পরিষদ সদস্য লাঞ্ছিত

  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ৬ জুন, ২০২১
  • ১৪ বার পঠিত

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ

সন্ত্রাসীদের দাবীকৃত ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেয়ায় পটুয়াখালী জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ শফিকুল ইসলামকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার এক অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

রোববার দুপুর ১২টার দিকে জেলা পরিষদের হিসাব রক্ষকের কক্ষ থেকে তাকে বাইরে ডেকে নেয় সন্ত্রাসী শাওন ও তুহিনসহ ১৫/২০ জন দুর্বৃত্ত । এসময় দুবৃত্তরা তার কাছে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে। এ টাকা দিতে অস্বীকার করায় সন্ত্রাসীরা তার উপর চড়াও হয়ে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে এবং অকথ্য ভাষায় গালা-গালি করে তার সম্মানহানীর পাশাপাশি টাকা না দিলে জীবন নাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়।

সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন মোঃ শফিকুল ইসলাম। তিনি পটুয়াখালী জেলা পরিষদের মির্জাগঞ্জ উপজেলার ১নং সাধারন সদস্য।

 

তিনি আরো জানান, বিষয়টি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে জানানো হয়েছে। তিনি বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। তার আসার পরে মামলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ বিষয়ে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান মোহন সাংবাদিকদের জানান, জেলাপরিষদ সদস্যকে লাঞ্চিত করা হয়েছে ঘটনাটি জানার পর জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে অতিবাহিত করা হয়েছে। জেলা পরিষদে এসে মাস্তানি করবে এটা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কর্মকর্তা কর্মচারী জানান, এ সন্ত্রাসী ঘটনায় তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। জেলা পরিষদের প্রধান নিবাহী কর্মকর্তা শাহ্ মো. রফিকুল ইসলাম জানান, ঘটনার সময় আমি একটি মিটিং এ ছিলাম। ঘটনা শুনে চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েছি। দুর্যোগপূর্ন আবহাওয়ার কারনে বিদ্যুৎ না থাকায়, সি.সি ফুটেজ দেখে সন্ত্রাসীদের সনাক্ত করা যায়নি। সনাক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনকরা হবে।

এ জাতীয় আরো খবর
Developed by
error: Content is protected !!